Ananta Bijoy Das: An Undefeated Fallen Down Star

13139116_10154134128098104_2447191331900259945_n

Ananta Bijoy Das– was an immensely promising young man, a Bangladeshi secular blogger and writer known for advocating Science and History and Philosophy of Science, Politicization of Science, Free-thoughts, and Secularism are the particular fields of knowledge, he has published several books and articles from different publishers in Bangladesh. He ran an organization in Sylhet, introduce his organization as ‘Science & Rationalist Council’ (SRC). The main purpose of their organization was to spread Science and Rational thinking in our society. To accomplish this purpose, he took several initiatives from their organization. For example, he organized debate programs on different issues among the secondary and tertiary level of students of Bangladesh. He has a publication through which they promote Science, Rationality, Secularism, Humanist values, and critical thinking on social, cultural, religious superstitions that prevail in our Society. This publication was admired them by readers throughout Bangladesh. Its name is ‘Jukti’ or in English, ‘Rationality’. In this magazine, he published various articles written by several world-renowned scientists, sociologists, humanists, and rationalists. Moreover, he tried to build this broken down society newly with his thought and the people who were with him would be his charioteers in the new sun.

Ananta Bijoy Das was killed in a morning(12 May 2015, in Sylhet) in public with the machete by some zealots of a dark society. Could you answer what his boob was?  we believe that Ananta Bijay Das is a Phoenix(In Greek mythology, a phoenix is a long-lived bird that is cyclically regenerated or born again. Associated with the Sun,) who was born in a barbaric society. He will have been being back again and again with his thought and sense in this society. He will never be defeated, is never perished. He will be seen in the sunlight of towns, will stand at the humane window. Ananta’s never die– it is impossible. Philosopher Sardar Fazlul Karim said, “I say, when is the human being born, when will I be born in? I will be born through death.” And impeccable poet Jibanananda Das wrote, “Person exists still after death.”

Ananta took responsibility of removing alga that sucking the society for thousand years. And by taking up the gauntlet, he using a pen by his townie’s hand threw a challenge to the superstitious people to stop their business which moves around a religion. Moreover, he tried to describe the natural truth in lieu of people’s preternatural thinking. He, in his lifetime, had been able to be rationalistic lad on account of his free thinking.

But, some men who were born in a rotten old society killed him brutally; nevertheless, they couldn’t banish him– as much the people could never be able to stop progress in past. In the sixteenth century, it was very dangerous to say that the earth moves around the sun; but, Nicolaus Copernicus [(1473-1543), was a Renaissance and Reformation era mathematician and astronomer who formulated a model of the universe that placed the Sun rather than the Earth at the center of the universe.] uttered and brought forward the theory and finally had been able to push the earth from the center of the universe. It can seem that it is a very common phenomenon that the earth moves around the sun as we always say and believe it. But, saying this truth was not only awfully dangerous but also very deadly at that time. To reach present days to say and to believe in these all truths, science has taken hundreds of years; but, however, science-movement has never been stopped.

People who think of science have never been divergent from their path of beliefs. That’s why, Giordano Bruno [(1548-1600), was an Italian Dominican friar, philosopher, mathematician, poet and cosmological theorist.] had to die under the direction of a church and Galileo Galilei [(1564-1642), an Italian freethinker and key figure in the scientific revolution who improved the telescope, made astronomical observations, and put forward the basic principle of relativity in Physics.] had to suffer intolerable pain too. Moreover, Hypatia [(born c. 350–370; died 415 AD), often called Hypatia of Alexandria, was a Greek mathematician, astronomer, inventor, and philosopher in Egypt, then part of the Eastern Roman Empire.] had to face the utmost atrocious affliction for her scientific thoughts. Under the direction of a church, at first, some people disengaged her skin and boned with an oyster-crust and ultimately they killed her on a street in Alexandria with fire. But, notwithstanding, science has been gradually gaining ground overriding all the obstacles people make. There were a few individuals who protested against while Bruno, Galilei, Hypatia and Darwin [(1808-1882), was an English naturalist, geologist, and biologist, best known for his contributions to the science of evolution.] were named as Escort Of Satan; but, however, the progress of science has never been stopped for a while. Rather, it has grabbed the highest place evading people’s illiteracy and obtuseness.

Those who killed Ananta Bijoy Das were defeated to Ananta’s thoughts. And like those zealots of Alexandria Ananta-killers came here on Ananta’s green town with Machetes. Those who came with machetes to Ananta to kill him had only one identity and that was that they were a human being. Those slayers who killed Ananta brutally certainly roam here and there on the green land with smiling face; but, however, it is verily true that they are not happy at all, no happiness is in their heart. No one can live well after killing people. They could not kill the man Ananta, stopped the progress of his minute life. But, however, Ananta will certainly roam in the country, in the world with his thoughts. But, those dentate violent beasts, darkness cultivators, will be in a shack in where no light, no love exists.

It is many months since Ananta was killed; but, however, the frail state has yet to be able to apprehend the Ananta killers. The same thing is with promising science-writer Avijit Roy too. No slayer is nabbed even though one hundred days have passed away. We talk about the culture of injustice very often, but the culture of injustice is not same in everywhere. As one who speaks against the Prime Minister is arrested within a few hours. Similarly, it is a very common phenomenon and there are so many instances of arresting the blogger, writer, journalist within a few hours due to hurting the so-called religion-sentiment. But, however, there is no instance of arresting killers who kill bloggers, writers or progressive people. Here, we have no ability to do something without booing the things the state does.

I don’t know, whether the state will be able to adjudicate of Ananta-Avijit murder or not. But, we shall strive for getting a judgment, fight against killing people, be on highways to resist people who assail others’ free opinion. Moreover, we have to strive for the science-based one-way education system. We strongly believe that a science-based one-way education system can build future Anantas. And through this, Ananta will live as a darkness removing alight light. He has given us that light that never goes out and lights forever. We should carry on that light. We shall go forward if we do so outstripping all fear.

Before concluding, I would like to mention Sardar Fazlul Karim’s words: “Human beings are to die, but their ideology has no death.” Really, Ananta Bijoy Das can never die. He, the star of town, fell down on May 12, 2015. Thousand of more stars who don’t fear to fall down, though the zealots are killing the stars one after one. The twenty-century waits to hear the sound of falling down of the stars; but, however, the stars never defeat. Life is a synonym word for revolution, death is not the conclusion.

Ananta Bijoy Das, take my red salute.

Advertisements

শিক্ষা নিয়ে উদ্বেগ কেন “খুচরা ব্যাপার” হবে?

155620thumbnail_gafargaon_pic-1,19-11-2017

মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষা বাতিলে উচ্চ আদালতে রিটের সমালোচন করে বলেন, ‘অনেক জরুরি মামলা থাকতে বাচ্চারা পরীক্ষা দেবে কি দেবে না তা নিয়ে একটা রিট করে বসে থাকে। জরুরি মামলা শুনানির সময় নেই। এই সমস্ত খুচরা জিনিস নিয়ে সময় কাটানো কেন?’ (বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট, নভেম্বর ২১, ২০১৭)

সংসদ নেতা শেখ হাসিনা পড়াশুনা নিয়ে দুশ্চিন্তাকে “খুচরা জিনিস” ভাবেন। সেই বক্তব্যে সার্টিফিকেট পেলে শিক্ষার্থীদের আত্মবিশ্বাস বাড়ে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, ‘পরীক্ষার পর ছেলেমেয়েরা হাতে যখন সার্টিফিকেট পাবে– এটা একটা আনন্দের বিষয়। সার্টিফিকেট পেলে নিজেদের মধ্যে একটা আত্মবিশ্বাস আসে। এতে আপত্তিটা থাকতে পারে– বুঝতে পারি না।’ রাষ্ট্র প্রধানদের এই বুঝতে না পারাটা ব্রিটিশ আমলেও ছিলো, পাকিস্তান আমলেও ছিলো এখনো আছে।

ঔপনিবেশিক ইংরেজদের আমলে তারা এমন একটি শিক্ষা প্রচলন করলো যাতে বেরিয়ে আসে এমন এক শিক্ষিত শ্রেণি যে শ্রেণিটিই হবে এদেশের ইংরেজ প্রভূর পাহারাদার। ব্রিটিশরাও শিক্ষাকে “খুচরা” এবং নিজেদের গোলাম তৈরির পথ হিসেবেই বেছে নিয়েছিলো। পাকিস্তান নামক নয়া ঔপনিবেশিক রাষ্ট্রটির শিক্ষা দর্শন প্রতিফলিত হয়েছিলো ধর্মভিত্তিক ও বৈষম্যমূলক ব্যবস্থার মাধ্যমে। এমনকি আমরা যদি আরো পিছনে যাই। তাহলে দেখতে পাই প্রাচীন বাংলায় যখন আর্যরা আসেনি। ঠিক তখন প্রথমে অস্ট্রিক ও পরে দ্রাবিড় জনগোষ্টির জীবন প্রণালী ও দার্শনিক প্রত্যয়ে পরিচালিত হতো তখনকার বাংলার জনজীবন। আর্যরা আসার পরে শাসকের দর্শন হিসেবে আর্য চিন্তা ও আর্য দর্শন প্রধান হয়ে উঠে। প্রবল বর্ণাশ্রমে পীড়িত প্রাচীন ভারতে ভ্রাম্মন, ক্ষত্রিয়, বৈশ্য এ উচ্চবর্ণগুলোর জন্য শিক্ষার অধিকার ছিল। সংখ্যাগরিষ্ট শুদ্ররা যারা ছিল মূলত শ্রমজীবী শ্রেণী,তারা শিক্ষার অধিকার থেকে বঞ্চিত ছিল। এই বঞ্চনাকে ধর্মশাস্ত্রের বিধান দিয়ে ন্যায়ানুমোদিত করা হয়েছিল। পূর্বজন্মের পুণ্য নেই বলে তার বিদ্যাশিক্ষার অধিকার নেই। শুধু শুদ্র নয়,  শূদ্র-অশুদ্র নির্বিশেষে সকল বর্ণের নারীদেরও একই দশা; তারা বহুবিদ্যা লাভের অধিকারবঞ্চিত। কেবল স্বামী তথা পুরুষের সেবার মধ্যেই নারী জন্মের স্বার্থকতা। বস্তুত এটি ছিল হিন্দু সভ্যতা। পরবর্তীকালে বৌদ্দ ও জৈন ধর্মের আবির্ভাবের পরে তা বহুলোককে আকর্ষন করেছে। মোট কথা প্রাচীন বাংলায় শিক্ষা দর্শন ছিল ধর্মভিত্তিক।

মধ্যযুগে মুসলিম শাসনামলেও এর খুব একটা ব্যত্যয় ঘটেনি। শিক্ষা ছিল মসজিদভিত্তিক। তত্ত্বগতভাবে সকল মানুষ সমান হওয়ায় ইসলামে বিদ্যালাভের অধিকার নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সবার থাকলেও মুসলিম রাজ-রাজড়াদের আমলেও শ্রেণি বৈষম্য শক্ত ভিতের ওপর দাঁড়িয়ে ছিল। আশরাফ-আতরাফ বিভক্ত এ সমাজেও শিক্ষা আতরাফের নাগালের বইরে থেকে যায়। বন্দিত্বের চাপে নিষ্পেষিত ও নানা বিধি নিষেধের জ্বালায় জর্জরিত নারীদের অবস্থা ছিল আরো করুণ। খুব স্বাভাবিকভাবেই শিক্ষাকে খুচরা ব্যাপার হিসেবে ধরে সেই প্রাচীনপন্থি থেকে শুরু করে ব্রিটিশ আমল, পাকিস্তান আমল এমনকি বর্তমান বাংলাদেশ রাষ্ট্র ঠিকে আছে।

বাংলাদেশের শিক্ষা আইন ২০১৩-এ “মাধ্যমিক শিক্ষার পূর্ব স্তর পর্যন্ত সকল আনুষ্ঠানিক শিক্ষাকেই মৌলিক শিক্ষা হিসেবে অভিহিত করা হয়েছে”। দেশের সকল মানুষের শিক্ষার আয়োজন এবং জনসংখ্যাকে দক্ষ করে তোলার মূল ভিত্তি হলো প্রাথমিক শিক্ষা। শিক্ষার এ স্তর পরবর্তী সকল স্তরের ভিত্তি সৃষ্টি করে। প্রাথমিক শিক্ষাকে এড়িয়ে কোনোভাবেই মৌলিক শিক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব নয়। আর সেই প্রাথমিক শিক্ষাকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা “খুচরা ব্যাপার” মনে করেন। সঙ্গে সঙ্গে এও মনে করেন যে, শিক্ষার মূল উদ্দেশ্য সার্টিফিকেট পাওয়া। কেননা তাঁর যুক্তি হলো, সার্টিফিকেট পেলে ছাত্ররা খুশি হয়।

গত কয়েক বছর ধরে ধারাবাহিকভাবেই প্রশ্নপত্র ফাঁস হচ্ছে। আর প্রশ্নপত্র ফাঁসের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের নৈতিক মূল্যবোধ ধ্বংস করা হচ্ছে।  সাম্প্রতিক সময়ে পাবলিক পরীক্ষাগুলোতে প্রশ্নপত্র ফাঁস মহামারী আকার ধারণ করেছে। সরকার থেকে বরাবরই ‘ষড়যন্ত্র’ বলে দায় এড়িয়েছে, গত ৫ বছরে প্রশ্ন ফাঁস হয়নি বলে নির্লজ্জ উক্তি করা হয়েছে। ফলে দোষী ব্যক্তিরা শাস্তির আড়ালেই থেকে যাচ্ছে। প্রশ্নপত্র ফাঁসের মতো এমন অনৈতিক ঘটনা শিক্ষার বাণিজ্যিকীকরণের ফলেই ঘটছে। শিক্ষা যখন মুনাফার হাতিয়ারে পরিণত হয়, তখন ছাত্র-শিক্ষক-প্রশ্নপত্র প্রণয়নের সাথে যুক্ত কর্মকতা-কর্মচারি কারো মাঝে নীতি নৈতিকতা মূল্যবোধ এসব কাজ করে না। আবার ফাঁসকৃত এসব প্রশ্ন যে সমস্ত শিক্ষার্থীদের হাতে পড়ছে, তাদেরও নৈতিক অধঃপতন ঘটছে। কোমলমতি এই শিক্ষার্থীদের নৈতিক অধঃপতনের দায় কে নেবে? এই প্রশ্ন তোলাটাও কি খুচরা আলাপ?

এই যে কাগজ(সার্টিফিকেট) নির্ভর শিক্ষা ব্যবস্থা। শিক্ষার মৌলিক দর্শনকে পেছনে ফেলে সার্টিফিকেট অর্জনের মার মার কাট কাট প্রতিযোগিতা। পরীক্ষা নামক যুদ্ধ করিয়ে শিশুদের যে মানসিক পীড়ন এবং ভীতিকর পদ্ধতির সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়া হয়। এটি কোনভাবেই কোন সুস্থ প্রতিযোগিতা নয়। কিন্তু আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রীও সার্টিফিকেট নামক বস্তুটির ব্যাপারে খুবই আগ্রহী। বিশ্বের অনেক দেশে শিক্ষা ব্যবস্থাটা পাশ-ফেইল, বেশি নম্বর, কম নম্বর, বই গেলানো নির্ভর না। বিশেষ করে শিশুদের ক্ষেত্রে। যেটাকে প্রদানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন “খুচরা ব্যাপার”।

ধরা হয় ফিনল্যান্ডের শিক্ষা ব্যবস্থা হচ্ছে পৃথিবীর সেরা শিক্ষা ব্যবস্থা। ফিনল্যান্ডের শিক্ষা ব্যবস্থার মৌলিক আলাপ হলোঃ সবার জন্য শিক্ষার সমান সুযোগ। ধনী, গরিব, শরণার্থী সবার জন্য একই ধরনের স্কুল, একই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। আমাদের মত প্রাথমিক শিক্ষার শুরুতেই বাংলা মাধ্যম, ইংরেজি মাধ্যম (ইংলিশ মিডিয়াম), দাখিল মাদ্রাসা, কাওমী মাদ্রাসার বহুমাত্রিক বিভাজন নাই। এমনকি তাদের সকল স্তরের শিক্ষা সম্পূর্ণরূপে ফ্রি। আমাদের মতো সরকারি স্কুল কলেজে পরীক্ষার ফি, ভর্তি ফিও দিতে হয় না। প্রি-প্রাইমারি বা প্রাক-প্রাথমিক থেকে প্রাথমিক পর্যন্ত বই, খাবার এবং যাতায়াত ব্যবস্থা পর্যন্ত বিনামুল্যে প্রদান করা হয়। একটি দেশ কেন সবদিক থেকে এগিয়ে আছে, সেটা তাদের শিক্ষা ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ করলে খোঁজে পাওয়া যাবে। কিন্তু আমাদের উল্টো। আমরা মুখে বলছি আমরা সেরা হতে চাই। সাম্প্রদায়িকতা, জঙ্গিবাদ, নারী নির্যাতন-ধর্ষণ, খুন, দূর্নীতি,ধর্মান্ধতায় আমরা শীর্ষে। এই অন্ধকার সময় থেকে মুক্তি চাই। আবার শিক্ষা নিয়ে জরুরি আলাপকে “খুচরা ব্যাপার” বলছি।

শিক্ষাব্যবস্থা একটি জাতির আশা-আকাঙ্খা রূপায়নের ও ভবিষ্যৎ সমাজ নির্মাণের হাতিয়ার। কাজেই দেশের কৃষক,শ্রমিক,ম্যধবিত্তসহ সকল শ্রেণির জনগণের জীবনে নানা গুরুত্বপূর্ণ প্রয়োজনের উপলব্ধি জাগানো,নানাবিধ সমস্যা সমাধানের যোগ্যতা অর্জন এবং তাদের কাঙ্খিত নতুন সমাজ সৃষ্টির প্রেরণা সঞ্চারই একটি শিক্ষা ব্যবস্থার প্রধান দায়িত্ব ও লক্ষ্য হওয়া উচিৎ। মানবতা ও বিশ্বভ্রাতৃত্বের চেতনায় শিক্ষার্থীদের উদ্ধুদ্ধ করতে হবে। শিক্ষার মাধ্যমে মানুষে মানুষে মৈত্রী,প্রীতির মনোভাব এবং মানাবাধিকার,দৈহিক শ্রম ও মানবিক মর্যাদার প্রতি সম্মানবোধ সৃষ্টি করতে হবে।

আমাদের সংবিধানের ৩, ১৫ ও ১৭ নং ধারায় বলা হয়েছে বাংলাদেশের প্রাথমিক শিক্ষা দর্শনের মূল  বীজ বা চেতনা নিহিত।  অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক শিক্ষা বিষয়ে ১৭ নং ধারায় বলা হয়েছে,  “রাষ্ট্র- (ক) একইপদ্ধতির গণমুখী ও সার্বজনীন শিক্ষাব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার জন্য এবং আইনের দ্বারা নির্ধারিত স্তর পর্যন্ত সকল বালক-বালিকাকে অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক শিক্ষাদানের জন্য;  (খ) সমাজের প্রয়োজনের সহিত শিক্ষাকে সঙ্গতিপূর্ণ করিবার জন্য এবং সেই প্রয়োজন সিদ্ধ করিবার উদ্দেশ্যে যথাযথ প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ও সদিচ্ছা-প্রণোদিত নাগরিক সৃষ্টির জন্য।

এরূপ স্পষ্ট সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা থাকার পরও দেশের রাষ্ট্র প্রধানের কাছে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষা বাতিলের রিট কিভাবে “খুচরা ব্যাপার” হয় ?

 

State needs to stand up against the bully

Will Bangladesh government protect those who have burned and vandalised Hindu houses in Horkoli Thakurpara village of Rangpur district today (Nov 10, 2017) similar to other miscreants who have not been punished by the law?'”

On 30 October 2016, hundreds of people gathered in Brahmanbaria district in eastern Bangladesh, to protest a Facebook post allegedly made by Rasraj Das, 25, is a fisherman and member of the Hindu religious minority. which they claimed insulted Islam. The mob, which had links to the groups Hefajat-e-Islam and Ahle Sunnat Wal Jamaat, a network of madrasa leaders who hope to introduce Shariah in Bangladesh, went on a rampage through Hindu villages in the area, vandalising at least 100 homes and several temples. As usually, no justice we have got of that assault; however, Rashraj Das has been detained in Bangladesh since October 2016. He was arrested for allegedly posting an “offensive” image on Facebook and charged with “hurting religious sentiment” was locked up and had to be subdued even though he did no crime.

And again On 10 November 2017, after saying prayer of Jumuah, thousands from several villages gathered in front of a mosque and then, many of the people carrying sticks, torched and vandalised Hindu houses claiming that one Titu Chandra Roy ”insulted Islam” on Facebook two weeks ago; but it is very ridiculous that no one of that mob can say what the insulting word is.

We have seen a photo of an aged woman wailing in front of her burned down house. I just meticulously fear to think of her unuttered words and mental condition. Since we are a human being, that howling reaches to our eardrum. We get angered- definitely, these barbarisms make us offend.

f242359521e776fd08b7e7da32417f1b-5a05a4a3714a3
A woman wailing in front of her burned down the house. Photo-courtesy

Very ago Hefazat-e-Islam, a network of madrasa leaders who hope to introduce Shariah in Bangladesh, threatened and declared that those who would dishonor Islam religion would have been throttled and killed. But, very sadly it is to say that the leaders who threaten people again and again in different ways on behalf of Hefazat are, however, highly entertained at the head office of government. Moreover, the government abides by the demands and makes a syllabus for education system after the assertions of Hefazat. Since the government doesn’t pay attention to these wrongdoings that are being happened in the country, zealot people who need land burn Hindu houses using religious sentiment- besides this, people who want to strengthen political platform using religion are active in the time of persecution.

I have no word to console the oppressed people of Horkoli Thakurpara, Rangpur. To stand by the tormented people, prime minister of Bangladesh Sheikh Hasina might not go to Rangpur; but, if it were Cricket, she would surely be on the field.

A face of a white whole cloth wearing elderly woman who wailing in front of her burned down house comes again and again on my mind. Is it believable that the howling woman who downtrodden by her neighbors who dwelling just before her house! It is hard to believe in this century but it seems as if it were a very normal thing in our country.

The down-hearted people of Horkoli Thakurpara are going to spend their night under the open sky. They are helpless, burned with envy by the majority Muslim zealot people. It is crying need to stand by the abraded lawful Hindu minority people; but we are being late.

Please follow this link for Bangla version on Facebook

Yet the fight will continue

23-year-old young Mashal Khan studied at the Mardan University of Pakistan. Mashal described himself as ‘The Humanist’ on his Facebook page and he dreamed of a system where everyone could enjoy justice and equal rights. Mashal Khan was never afraid to speak his mind.

The Journalism student of Mardan University was known for questioning his peers and speaking out against injustice and corruption. He adorned his dorm room with posters of Che Guevara and Karl Marx, on the wall of his room in the dorm was written: “Be Curious, Crazy, and Mad.” According to the teachers and friends, he is inquisitive and intellectual.

Therefore, Mashal Khan used to raise the question the Pakistani communal state system and discussed against fanaticism. He also used to raise voice against injustice in the society. He was killed by a mob in Pakistan. On Thursday, while he was killed over accusations of blasphemy at his University campus, a cop said that it is good that an atheist is sent to hell.

2017-04-13_16-46-02-e1492116440214.jpg

A video published online shows that a group of people was kicking and beating up Mashal Khan by half-naked. Even when his dead body was lying on the ground, they were throwing stones and wooden pieces.

Mashal khan’s house is sixty kilometers away from Mardan town, his father Iqbal Shah runs a small grocery shop and he is keenly interested in litterateur, therefore he has been growing up his children like him. Mashal khan’s sister said that Mashal is our glory.

3500 (2).jpg

As a freethinker and Student Activist from Bangladesh, I would like to say that the history of our ribs is the same comrade. Hypatia, Bruno’s blood was not worthless. Similarly, the blood of Mashal Khan will not be futile. Yet the fight will continue.

Please follow this link for Bangla version on Facebook

বন্দুকের সামনে বুক পেতে দেয়া আমাদের বিপ্লবী অগ্রজরা

16708169_1593778940650562_3835334319122586445_n

আচ্ছা, এই ১৪ ফেব্রুয়ারির দিনেই তো সামরিক স্বৈরাচার এরশাদ সরকার ছাত্রদের উপর গুলি ছোঁড়ে ছিলো, ছাত্র সমাবেশের উপর ট্রাক তুলে দিয়েছিলো। গরীবের সন্তানের শিক্ষার জন্য ও বিজ্ঞানভিত্তিক-অসাম্প্রদায়িক শিক্ষানীতির দাবিতে ছাত্ররা স্লোগান দিচ্ছে, ব্যানার-ফেস্টুন উঁচিয়ে প্রতিবাদ করছে। ঠিক সেই সময় জ্যান্ত মানুষের উপর বর্বরোচিতভাবে ট্রাক তুলে দেয়া হয়েছিলো।

আপনার হাতে একটা ট্রাকের স্টিয়ারিং তুলে দেয়া হলো। তারপর বলা হলো, শাহবাগে কিংবা সিলেটে কিংবা রাজশাহী, চট্টগ্রামে জীবন্ত মানুষের উপর ট্রাক তুলে দিতে। আপনার চরম শত্রু হলেও পারবেন না, আমি হলেও পারতাম না। কিন্তু এই ১৪-ই ফেব্রুয়ারি এরকমই বর্বর এবং নির্মমতা আন্দোলনকারীদের সাথে ঘটেছিলো। সেই কাপুরুষোচিত ট্রাক তুলে দেয়ার ঘটনার পর পরই ছাত্রদের উপর বেধড়ক লাঠিচার্জ, ইট-পাটকেল ও বেপরোয়া গুলি ছোঁড়া শুরু হয়। গুলিবিদ্ধ হয় জয়নাল। গুলিবিদ্ধ জয়নালকে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করা হয়।

ছাত্রনেতা জয়নালের লাশ পাওয়া গেলো। দিপালী সাহার লাশ গুম করে ফেলা হলো। কাঞ্চনকে পরের দিন চট্টগ্রামে গুলি করে হত্যা করা হলো। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ নিহত ও আহতদের এ্যাম্বুলেন্স পাঠিয়ে নিয়ে আসতে চাইলে ঘটনাস্থলে ঢুকতে দেয়নি এরশাদের ভাড়াটে খুনিরা।

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সামরিক সরকারের শিক্ষামন্ত্রী মজিদ খান ক্ষমতায় এসেই নতুন শিক্ষানীতি প্রণয়ন করে। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসন খর্ব ও রেজাল্ট খারাপ হলেও যারা ৫০% শিক্ষার ব্যয়ভার দিতে সমর্থ, তাদের উচ্চশিক্ষার সুযোগ দেওয়ার কথা বলা হয় এতে। এই নীতিতে দরিদ্ররা উচ্চশিক্ষা থেকে বঞ্চিত হতে পারে বলে ছাত্ররা এর প্রবল বিরোধিতা করে।

আন্দোলনের ধারাবহিকতায় ১৯৮৩ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারির ঢাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ মজিদ খানের কুখ্যাত শিক্ষানীতি প্রত্যাহার, বন্দি মুক্তি ও গণতান্ত্রিক অধিকারের দাবি ও গণমুখী, বিজ্ঞানভিত্তিক ও অসাম্প্রদায়িক শিক্ষানীতির দাবিতে ছাত্র জমায়েত-এর ডাক দেয়।

সাল ১৯৮৩, ১৪ ফেব্রুয়ারি। আমাদের সেই গৌরবময় ইতিহাসের দিন। যেদিন, গরীবের সন্তানের শিক্ষার জন্য, গণমুখী, বিজ্ঞানভিত্তিক ও অসাম্প্রদায়িক শিক্ষানীতির দাবিতে আমাদের বিপ্লবী অগ্রজরা শার্টের বোতাম খুলে বন্দুকের দিকে তাক করে দিয়েছিলে বুক। সামরিক বুটের লাত্তি, ট্রাকের চাকা, হিংস্র লাঠিচার্জ কিচ্ছু রুখে দিতে পারে নাই। সেদিন নিহত হয়েছিলেন মোজাম্মেল, জয়নাল, জাফর, কাঞ্চন, দীপালীসহ আরো অনেকে। সরকারী মতেই গ্রেফতার করা হয় ১,৩৩১ জন ছাত্র-জনতাকে, কিন্ত প্রকৃতপক্ষে এই সংখ্যা আরো বেশি ছিল। খোঁজ মেলেনি অনেকেরই। আমাদের সবকিছু লুট হয়ে যেতে পারে। কিন্তু মানুষের বিবেক আর উত্তরসূরি হিসেবে পাওয়া ঐতিহাসিক লড়াই আমাদের আজকের দিনে মনে করিয়ে দেয় জয়নাল, জাফর, কাঞ্চন ও দিপালীদের।

এরশাদের সামরিক সরকারের মজিদ কমিশন এবং পাকিস্তান আমলের আইয়ূবের শরীফ কমিশনের চেয়েও ভয়াবহ বর্তমান হাসিনা সরকারের শিক্ষানীতি। প্রশ্নপত্র ফাঁস হচ্ছে, পাঠ্যপুস্তকের ভেতরে ঢুকিয়ে দেয়া হয়েছে সাম্প্রদায়িক বিষ, রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় শিক্ষা এখন একটা বাজারের চরম প্রতিযোগিতামূলক পণ্য। আর, তাই শিক্ষা নামের “পণ্যটির” ক্রেতা পণ্যটি কেনার জন্য বিক্রি করে দিচ্ছেন তার শেষ অবলম্বনটুকু। শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে ক্রমেই বিজ্ঞানের পর্যবেক্ষণ, পরীক্ষণ-বিশ্লেষণেকে সরিয়ে দেয়া হচ্ছে। যারা ভেতর দিক থেকে চরম অন্ধ তাদের পরামর্শে চলছে শিক্ষা ব্যবস্থা।

দিপালী, জয়নাল, কাঞ্চন, জাফরদের রক্ত বৃথা যেতে পারে না। কোনভাবেই এই মহান আত্মত্যাগকে নতুন প্রজন্মের কাছ থেকে দূরে সরিয়ে রাখতে দেয়া হবে না। গুম হওয়া দিপালীর লাশ, বেয়োনেট দিয়ে খোঁচানো জয়নালের লাশ কিংবা চট্টগ্রামে গুলি খেয়ে পড়ে থাকা কাঞ্চনের লাশ আমাদের শক্তি, আমাদের মরা গাঙ্গের জীবনের স্পন্দন। ষাটের দশকে পাকিস্তানের সামরিক সরকারের সামনে যেমন বুক উঁচিয়ে আমরা দাঁড়িয়েছিলাম, আশির দশকে সামরিক জান্তা এরশাদের বেয়নেট গুলির যেমন আমরা পরোয়া করি নাই। এই সময়ে এসে হাসিনা সরকারের চরম সাম্প্রদায়িক-বাজারি শিক্ষা ব্যবস্থার বিরুদ্ধেও আমরা জয়নাল-দিপালীদের মতো আবার ঘুরে দাঁড়াবো এবং অবশ্যই আরেকটা ইতিহাস বিনির্মিত হবে।

১৪ ফেব্রুয়ারি স্বৈরাচারবিরোধী ছাত্র প্রতিরোধ দিবস  

Labour of Love

labour-of-love
বাজারী গড্ডালিকায় গা ভাসানোর সময়ে সংলাপহীন সিনেমা ‘আসা যাওয়ার মাঝে’। যার ইংরেজি নামটি ‘Labour Of Love’ হয়তো মানুষকে আকৃষ্ট করবে না। কিন্তু সংলাপহীন এই সিনেমা জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি পেয়েছে। আদিত্য বিক্রম সেনগুপ্তের প্রথম সিনেমা। প্রথম ছবিতেই জাতীয় পুরস্কার।
ছবিটা মোটেই সিনেমেটিক না। বুঝতে হলে সরাতে হবে চোখের উপর থেকে বাজারি মাকড়সার জাল। তবেই ব্যাগের কারখানায় দিনের শিফটে কাজ করা বাসবদত্তা চ্যাটার্জি এবং রাতের শিফটে একটি প্রিন্টিং প্রেসে কাজ করা ঋত্বিক চক্রবর্তীদের জীবনকে স্পর্শ করতে পারবেন। দু’জনেই শ্রমিক ও স্বামী-স্ত্রী। তাদের দেখা হয় শুধু মাত্র সকালে কয়েক মিনিটের জন্য। আর সেই একটু সময়ের দেখাতে নিঃসীম ভালবাসা আছে। দিনরাত জীবনযুদ্ধের সঙ্গে লড়ে তাদের জীবনে কোন জং ধরে না। লুম্পেন কালচার তাদের ঘীরে ফেলতে পারে না।
এই কালচারাল পপুলিজমের যুগে হয়তো এই সিনেমাকে অনেক খারিজ করে দিতে চাইবেন। আদিত্য বিক্রম নিম্ন মধ্যবিত্তের জীবন সাজিয়েছেন সংলাপ ছাড়া। যেখানে পরিচালক, রোদে শুকাতে দেয়া কুচকে যাওয়া পাঞ্জাবীর উপর ক্যামারা থমকে রেখে দেন ত্রিশ সেকেন্ড। নিম্ন মধ্যবিত্তের পিষ্ট হওয়া জীবন হয়তো তিনি মাত্র ত্রিশ সেকেন্ডে দেখানোর চেষ্টা করেছেন। আরো আছে মলিন ফ্রিজ, ক্ষয়াটে সেলফোন, ব্যাগ ম্যানুফ্যাকচারিং কোম্পানি, খবরের কাগজের কর্কশ ছাপাখানা, ক্লেদ-ভরা মাছের বাজার।
ছবির ভেতরে গীতা দত্তের দুটি গান’ আদিত্য আমাদের শুনান। ‘নিশি রাত বাঁকা চাঁদ আকাশে’ আর ‘তুমি যে আমার’। আর এই গানগুলো অদ্ভুদ করে সিনেমার ভেতরের আলাপ বলে দিতে সক্ষম।
বাসবদত্তা চ্যাটার্জি যখন অফিস থেকে গোধূলীর আলোয় ফিরছে। ঠিক তখন দু-তলার ঘরে ঋত্বিক চক্রবর্তী প্রস্ততি নিচ্ছে নিজ কর্মস্থলে যাওয়ার। সিনেমার মাঝে মাঝে শ্রমিকদের মিছিলের আওয়াজ শোনা যায়।’ লড়াই লড়াই লড়াই চাই-লড়াই করে বাঁচতে চাই’- ‘কাজের নামে ভাওতাবাজী চলবে না-চলবে না।’ হাওড়া-মহিষবাথান রুটের ২১৫ বাসে করে যখন বাসবদত্তা ফিরে আসছে ঠিক তখন যানবাহনের শব্দ ছাপিয়ে একটা শ্রমিক সমাবেশের কণ্ঠের আলাপ উঠে আসে। সনাতন দত্ত নামে একজন শ্রমিক আত্মহত্যা করেছেন। ঘরে অসুস্থ স্ত্রী ও দৃষ্টিপ্রতিবন্ধি মেয়ে আছে তাঁর, কিন্তু মালিক পক্ষ কোন নোটিশ না দিয়ে ছাটাই করেছে। তাই মানবসৃষ্ট যন্ত্রণায়-কষ্টে আত্মহননের পথ বেছে নেয়া সনাতন দত্তের জন্য সমাবেশ হচ্ছে। আর, সেই সব আলাপ আমাদের বদ্ধ কান অবদি সুখে থাকার সময়কে জব্দ করে দিতে চায়।
এইসব যন্ত্রণা আর লুকানো নিম্ন মধ্যবিত্তের লড়াই বিক্রম চমৎকারভাবে আমাদের সামনে কোন আলাপ ছাড়াই উপস্থাপন করেছেন।

শুভ জন্মদিন অঞ্জন দত্ত

চল্লিশ বছর বয়সে লোকটা গান করতে আসলো। এসে গাইলো খাতার ভেতর রেখে দেয়া লাল গোলাপ ফুলের চ্যাপ্টা হয়ে যাওয়ার গল্প কিংবা স্কুল-এর গেটের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা মেয়েটার জন্য দৌড়ে দৌড়ে আসা হাঁপানো কিশোর ছেলেটার আলাপ।

nirbaak

স্কুল পালিয়ে ম্যারী এ্যানের হাত ধরার তাড়া। সমাজকে খিস্তি করা লোকটার স্বভাব। তাই বলতে দ্বিধা করলো না, বংশের ইজ্জত রাখতে হলে বউ হতে হবে ফর্সা। মাথার ভেতর এলভিস প্রিসলি আর স্কুলের অঙ্কের খাতার ভেতর নিয়ম করে ম্যারী এ্যান থাকলেও ঘর বাঁধা হলো না। আমরা জানলাম বেলা বোস, মালা, দেবলিনা, রঞ্জনা, জয়ীতা সব প্রেমিকার খবর। গান শোনার পর থেকেই আমরাও নিয়ম করে প্রেমিকা ভাবতে শুরু করলাম মালাদের। কিছুটা মন খারাপ হলেও ববি রায়ও থেকে গেলেন ভালোবাসার লিস্টে। দেবলিনাদের সাহেবী জলশায় আমাদের মানায় না। তবুও উপড়ে যাওয়া শেকড়ের মধ্যেও অঞ্জনের মতো আমরাও বনেদিয়ানার গন্ধ খোঁজেছি।

নিজের জাত্যভিমান বাবার সাথে লোকটার সম্পর্ক কখনোই ভালো ছিলো না। সেটা খুব পরিষ্কার করেই বলেন। শিল্পবোদ্ধারা তাঁর দিকে আঙ্গুল তুলেন এই বলে যে, অঞ্জন দত্তের গানে নতুন কিছু নেই। একই সুর, একই গান। তিনি অস্বীকার করেন না। হ্যাঁ, আমি নতুন কিছু দিতে পারি নাই। আমি সুমন-নচিকেতার মতো কিছু দিতে পারি নাই। কিন্তু অভিনয়ে অঞ্জন অদ্বিতীয়-এটা সবাই মানেন। আবার তরুণরা মনে করে লোকটাই সেরা। আমাদের অনেক ঝাপসা আলাপ তাঁর গলা দিয়ে অবলীলায় বের হয়ে আসে।

অঞ্জণ দত্ত মানুষের কাছে পৌঁছে দেন। সেই অমোঘ সত্য বাণী। জানলা আমার মানেনা ধর্মের বিভেদ, জাতীয়তাবাদের পরোয়া করে না। সাদামাটা ছোটখাটো একটা গামছা আর একটা কলসির মালিক হরিপদও তাঁর গানের অংশ ছিলেন। একটু ভালো করে বাঁচবো বলে আর একটু বেশী রোজগারের চিন্তায়। আমরাও ছেড়েছি ঘর অঞ্জন দত্ত। সেটা আপনিই সুরে সুরে আমাদের কানে-গলায় তুলে দিয়েছিলেন। আর এই দুই যন্ত্রণার জন্য কত মানুষ পেছনে ফেলে এসেছে পাহাড়, নদী, ধানের ক্ষেত এবং প্রিয় মানুষ।